Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!
 #  বিশ্বের সবচেয়ে ‘হ্যান্ডসাম’ হৃতিক রোশন #  স্বর্ণের দাম বাড়ছে ভরিতে ১ হাজার ১৬৬ টাকা #  অতিরিক্ত ডিআইজি হলেন ২০ পুলিশ কর্মকর্তা #  সিপিডি’র ভবনে এডিসের লার্ভা #  মন্ত্রণালয়গুলোকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে প্রকল্প গ্রহণের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর #  বাস-সিএনজি সংঘর্ষে একই পরিবারের ৬ জনসহ নিহত ৮ #  বাবার কিনে দেয়া মোটর সাইকেল কেড়ে নিল ছেলের প্রাণ #  জি এম কাদেরকে বিরোধী দলের নেতা করার দাবি #  তরঙ্গ পত্রিকা পাঠক ফোরামের উদ্যোগে ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত #  বিএনপি’র হাত ধরেই ‘জঙ্গিবাদের’ উত্থান : হানিফ

এক ম্যাচেই বায়ার্নের ২৩ গোল : হ্যাটট্রিক ৫

f

প্রাক মৌসুমের ম্যাচে একের পর এক গোলে নিজেদের শহরের দল রটেচ-এগার্নকে রীতিমত উড়িয়ে দিয়েছে তুলাধুনা করেছে বায়ার্ন মিউনিখ। প্রতিপক্ষটির জালে ২৩টি গোল দিয়েছে বুন্ডেসলিগা চ্যাম্পিয়নরা!

জার্মানির মিউনিখে বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত ম্যাচটিতে ২৩-০ গোলের জয় পেয়েছে বায়ার্ন। হ্যাটট্রিক করেছেন মোট ৫ জন খেলোয়াড়। সর্বোচ্চ চারটি গোল করেছেন ফরাসি মিডফিল্ডার করেন্তিন তোলিসো। তিনটি করে গোল করেছেন রবের্ত লেভানদোভস্কি, জার্ড মুলার, লিও গরেটস্কা ও কাওয়াসি রিট। জোড়া গোল করেছেন রেনাতো সানচেজ।

গত মৌসুম শুরুর আগেও প্রস্তুতি ম্যাচে রটেচ-এগার্নের মুখোমুখি হয়েছিল মুখোমুখি বায়ার্ন। ওই ম্যাচেও ২০-২ গোলের জয় পেয়ে ছিল বুন্ডেসলিগার সবচেয়ে সফল দল।

এক ম্যাচেই ৩৮ গোল!

আন্তর্জাতিক ম্যাচে ১০টির বেশি গোল হওয়াটা শুধু শ্রমসাধ্য নয়, কঠিনও বটে। অবশ্য আন্তর্জাতিক ম্যাচে দুর্বল প্রতিপক্ষের বিপক্ষে ৩১-০ গোলে জয়ের রেকর্ডটি অস্ট্রেলিয়ার দখলে রয়েছে।

এবার অস্ট্রেলিয়ার রেকর্ডকেও হার মানিয়েছে ফিজি ফুটবল দল। দ্য ফেডারেল স্টেটস অব মাইক্রোনেশিয়ার বিপক্ষে তারা এক ম্যাচেই করেছে ৩৮ গোল! তাও আবার ২০১৬ অলিম্পিকের বাছাইপর্বে! ২০০১ সালে অস্ট্রেলিয়া ৩১-০ গোলে জিতেছিল আমেরিকান সামোয়ার বিপক্ষে। এটাই ছিল আন্তর্জাতিক ফুটবলে সর্বোচ্চ গোলের ব্যবধানে জয়ের রেকর্ড। এবার সেই রেকর্ড ভেঙে মাইক্রোনেশিয়ার বিপক্ষে ৩৮-০ গোলে জিতেছে ফিজি। এই বিশাল জয়ে ফিজির অ্যান্তোনিও তুইভুনা একাই করেছেন ১০ গোল। ম্যাচে প্রথমার্ধে ২১-০ গোলে এগিয়ে ছিল ফিজি। দ্বিতীয়ার্ধে তারা মাইক্রোনেশিয়ার জালে আরো ১৭টি বল জড়ায়।

তবে এই জয়ের রেকর্ডকে ফিফা স্বীকৃতি দেবে কি না, সেটা বলা মুশকিল। কারণ, টুর্নামেন্টটি যে বয়সভিত্তিক। এর আগে অস্ট্রেলিয়া যে ম্যাচে ৩১-০ গোলে জিতেছিল, সেটা ছিল ওশেনিয়া অঞ্চলের বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের ম্যাচ। সে কারণে ওটা রেকর্ডের স্বীকৃতি পেয়েছিল।

মাইক্রোনেশিয়া ১৯৮৬ সালে স্বাধীনতা লাভ করে। তারা যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে ‘কম্প্যাক্ট অব ফ্রি অ্যাসোসিয়েশন’ চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছে। সে কারণে ওয়াশিংটন দেশটির সব ধরনের দায়দায়িত্ব নিয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের মিলিটারি দিয়ে দেশটির প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা চলছে। যুক্তরাষ্ট্র দেশটিতে অন্য যেকোনো দেশের হস্তক্ষেপ কিংবা প্রবেশ নিষিদ্ধ করে রেখেছে। যুক্তরাষ্ট্রের সংসদে তাদের একটি আসনও রয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email