ডিজিটাল আইনে ব্যারিস্টার মইনুল গ্রেফতার

নারী সাংবাদিককে কটূক্তির অভিযোগে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় গ্রেফতার দেখানোর আবেদন মঞ্জুর করেছেন আদালত। গতকাল গুলশান থানার এসআই জিয়াউল ইসলাম এ মামলায় ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনকে গ্রেফতার দেখানোর আবেদন করেন। ঢাকার অতিরিক্ত সিএমএম আসাদুজ্জামান নূর এ আবেদন মঞ্জুর করেন।
গত ২৪ অক্টোবর ঢাকার সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক আস শামস জগলুল হোসেনের আদালতে মইনুলের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে এ মামলা করেন আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া উপকমিটির সদস্য সুমনা আক্তার লিলি। আদালত মামলাটি এজাহার হিসেবে গণ্য করার জন্য গুলশান থানাকে নির্দেশ দেন। ২৬ অক্টোবর গুলশান থানা মামলাটি এজাহার হিসেবে গণ্য করে। ২৭ অক্টোবর ঢাকা মহানগর হাকিম আদালত এজাহারটি গ্রহণ করেন।
সুমনা আক্তার মামলার অভিযোগে উল্লেখ্য করেন, আমি বিভিন্ন সামাজিক প্রতিষ্ঠানের সাথে যুক্ত। নারী ও শিশুদের মানবাধিকার রায় কাজ করছি। গত ১৬ অক্টোবর নিজ বাসায় ৭১ টেলিভিশনের টকশো অনুষ্ঠান দেখছিলাম। অনুষ্ঠানের একপর্যায়ে মাসুদা ভাট্টির প্রশ্নের জবাবে আইনজীবী মইনুল তাকে ‘চরিত্রহীন’ বলে মন্তব্য করেন।
মইনুল হোসেন এ মন্তব্যে নারী জাতির সম্মানহানি ঘটিয়েছেন। অথচ তিনি মা চাননি বরং গত ২১ অক্টোবর বেলা ৩টা থেকে ২২ অক্টোবর রাত ৯টার মধ্যে পুনরায় একটি টেলিফোন অডিও রেকর্ড ডিজিটাল ডিভাইসে প্রকাশ করেন। মইনুল হোসেন নিজে অডিও রেকর্ডটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে দেন।
মইনুল হোসেন ইংরেজি নিউ নেশন পত্রিকার প্যাডে প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে মাসুদা ভাট্টি-সম্পর্কিত বিতর্কিত ব্যাখ্যার আড়ালে পুনরায় ফেসবুকে মাসুদা ভাট্টির ব্যক্তিগত চরিত্র জঘন্য বলে মন্তব্য করেছেন।
উল্লেখ্য গত ১৬ অক্টোবর একাত্তর টেলিভিশনের টকশোতে সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টির এক প্রশ্নে রেগে গিয়ে মইনুল হোসেন বলেন, ‘আপনার দুঃসাহসের জন্য আপনাকে ধন্যবাদ দিচ্ছি। আপনি চরিত্রহীন বলে আমি মনে করতে চাই। আমার সঙ্গে জামায়াতের কানেকশনের কোনো প্রশ্নই নেই। আপনি যে প্রশ্ন করেছেন তা আমার জন্য অত্যন্ত বিব্রতকর।’ মইনুলের এ ধরনের বাক্য ব্যবহারের সমালোচনা শুরুর পর তার বিরুদ্ধে ঢাকাসহ দেশের বেশ কয়েকটি এলাকায় মানহানির মামলা হয়। এর মধ্যে কয়েকটিতে তিনি উচ্চ আদালত থেকে জামিন নিয়েছেন। গত ২২ অক্টোবর এ ঘটনায় রংপুরের দায়ের করা একটি মামলায় মইনুকে গ্রেফতার করে ডিবি পুলিশ। পরে ২৩ অক্টোবর মামলায় ঢাকা মহানগর হাকিম (এসিএমএম) কায়সারুল ইসলাম তার জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। বর্তমানে তিনি কারাগারে রয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *