#  নবীগঞ্জ উপজেলা প্রশাসনের উদ্যােগ প্রধানমন্ত্রীর ত্রান তহবিল থেকে শীতার্ত ছিন্নমুল মানুষের মাঝে কম্বল বিতরন #  বানিয়াচংয়ে হাছনপুরী হুজুরের স্মরণে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল #  সিটি নির্বাচনে ‘ইলেকশন মনিটরিং ফোরাম’ এর পক্ষ থেকেপাঁচ শতাধিক পর্যবেক্ষক মাঠে থাকবে #  ১লা ফেব্রুয়ারী সাংসদ মজিদ খানের সংবর্ধনা : বানিয়াচংয়ে আসছেন পরিকল্পনা মন্ত্রী এবং বেসামরিক বিমান ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী #  আইসিজের আদেশে মিয়ানমারের ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া #  শাহবাগে আন্দোলনকারীদের গুলি করতে গিয়ে গণপিটুনির শিকার ব্যবসায়ী #  আওয়ামী লীগকে ঢেলে সাজানো হবে : কাদের #  বাংলাদেশকে সন্ত্রাস ও দুর্নীতিমুক্ত করা হবে : প্রধানমন্ত্রী #  সিলেটগামী পারাবত এক্সপ্রেসে আগুন #  সব ধরনের ক্যান্সার কোষ ধ্বংসের কৌশল আবিষ্কার #  নবীগঞ্জে মাদরাসা মার্কেটে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড : ৯ টি দোকান পুড়ে ছাঁই #  বানিয়াচংয়ে ঠাকুরঘরে চুরি ॥ নগদ টাকা স্বর্ণালংকারসহ লক্ষাধিক টাকার মালামাল লুট #  বাংলাদেশে দুর্নীতির ব্যাপকতা উদ্বেগজনক : টিআইবি #  শাল্লার দাঁড়াইন নদী অবমুক্ত রাখতে জেলা প্রশাসক বরাবরে আবেদন #  মির্জাচরে মাটিকাটা নিয়ে সংঘর্ষে একজন নিহত #  নবীনগরে কাদিয়ানিদের বিরুদ্ধে হেফাজতের মিছিল #  কাশ্মির সমস্যার সমাধানে ভারত-পাক মধ্যস্থতা করতে চান ট্রাম্প

৬ ডিসেম্বর হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ মুক্ত দিবস ১৯৭১ সালে এইদিনে নবীগঞ্জ মুক্ত হয়েছিল

Nabiganj

নবীগঞ্জ(হবিগঞ্জ)প্রতিনিধি ॥ ৬ ডিসেম্বর নবীগঞ্জ মুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের বীরত্ব গাথা দিনগুলোর মধ্যে একটি দিন হল নবীগঞ্জ মুক্ত দিবস।সেদিন পূর্বাকাশের সুর্যোদয়ের সাথে সাথেই মুক্তিযোদ্ধারা পাক বাহিন দের হটিয়ে দিয়ে মুক্ত করেছিল নবীগঞ্জ শহরকে।
৩ দিনের সন্মুখ যুদ্ধের পর সেদিন সুর্যোদয়ের কিছুক্ষন আগে নবীগঞ্জ থানা সদর হতে পাক হানাদার বাহিণীকে সম্পূর্ণরূপে বিতাড়িত করে মুহমুর্হ গুলি ও জয় বাংলা শ্লোগানের মধ্যে বীরদর্পে এগিয়ে আসে কয়েক হাজার মুক্তিকামী জনতা। এ সময় তৎকালীন মুক্তিযদ্ধের সাব সেক্টর কমান্ডার মাহবুবুর রব সাদীর নেতৃত্বে থানা ভবনে উত্তোলন করা হয় স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা। পরে স্থানীয় নবীগঞ্জ ডাকবাংলো সন্মুখে হাজার হাজার জনতার আনন্দে উদ্বেলিত ভালবাসায় সিক্ত মাহবুবুর রব সাদী আবেগজড়িত কন্ঠে স্বাধীনতার মূল উদ্দেশ্য বর্ননা করেন এবং ঐদিন বিকালে বাহিনীসহ সিলেট রওয়ানা দেন।
৬ই ডিসেম্বর নবীগঞ্জ মুক্ত হওয়ার পূর্ব থেকেই মুক্তিযোদ্ধারা বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করেন। বিভিন্ন সময় পাক বাহিনীর উপর গেরিলা হামলা চালিয়ে তাদের ভীত সন্ত্রস্থ করে রাখে মুক্তিকামী সেনারা। কৌশলগত কারনে নবীগঞ্জ গুরুত্বপূর্ণ হওয়ায় মুক্তিযুদ্ধারা নবীগঞ্জ থানা ক্যম্পাস দখলের সিদ্ধান্ত নেয়। নবীগঞ্জে পাক বাহিনীর অন্যতম ক্যাম্প নবীগঞ্জ থানাকে লক্ষ্য করে তিনদিকে মুক্তিযুদ্ধারা অবস্থান নেয়। ৩ রা ডিসেম্বর রাত থেকে ক্ষনে ক্ষনে গুলি বিনিময় চলে উভয়ের মধ্যে। মুক্তিযোদ্ধারা কৌশলগত কারনে ও আত্মরক্ষার্থে কখনোও পিছু হটা,আবার কখনোও আক্রমন চালিয়ে পাক বাহিনীকে নাস্তানাবুদ করতে থাকে। সারাদেশে পাক বাহিনীর অবস্থান খারাপ হওয়ায় নবীগঞ্জেও তাদের খাদ্য এবং রসদ সরবরাহ কমে যায়।
অন্যদিকে মুক্তিবাহিনী একেক সময়ে একেক দিক দিয়ে আক্রমন চালিয়ে যায়। ৪ ঠা ডিসেম্বর রাতে থানা ভবনের উত্তর দিকে রাজনগর গ্রামের নিকট থেকে মুক্তিযোদ্ধা রশিদ বাহিনীর লোকজন পাক বাহিনীর উপর প্রচন্ড আক্রমন চালায়। এ যুদ্ধে মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম বীর কিশোর বয়সী মুক্তিযোদ্ধা ধ্রুব ৪ঠা ডিসেম্বর শহীদ হন এবং কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধা আহত হন। পরদিন ৫ ডিসেম্বর রাতে নবীগঞ্জ থানায় অবস্থিত পাক বাহিনী ক্যাম্পে মুক্তিযোদ্ধারা চরগাঁও ও রাজাবাদ গ্রামের মধ্যবর্তী শাখা বরাক নদীর দক্ষিণ পাড়ে অবস্থান নেয়। প্রায় ৩ ঘন্টা ব্যাপী প্রচন্ড যুদ্ধের পর শক্র বাহিনী পালিয়ে যায়। পরদিন ৬ ই ডিসেম্বর ভোর রাতে পাক বাহিনীর নিকট থেকে কোন বাধা না আসায় মুক্তিবাহিনী বীরদর্পে জয়বাংলা শ্লোগানের মধ্য দিয়ে থানা প্রাঙ্গণে প্রবেশ করে এবং বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা উত্তোলন করে নবীগঞ্জ উপজেলাকে মুক্ত ঘোষণা করেন।

Print Friendly, PDF & Email