ইন্দোনেশিয়ায় ভূমিকম্পে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৩৪

বাংলা কণ্ঠ রিপোর্ট ॥ শক্তিশালী ভূমিকম্পে বিপর্যস্ত ইন্দোনেশিয়া। শুক্রবার দেশটির সুলায়েসি দ্বীপে এই ঘটনা ঘটে। এতে নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৪ জনে। আহত হয়েছেন প্রায় সাত শতাধিক মানুষ।

দেশটির সুলায়েসি দ্বীপে হওয়া ভূমিকম্পের তীব্রতা ছিল ৬.২। এর উৎসস্থল ম্যাজিন শহরের উত্তর-পূর্বে ভূপৃষ্ঠের ১০ কিলোমিটার গভীরে।

সিএনএন বলছে, শুক্রবারের এই ঘটনার ২৪ ঘণ্টা আগেও ওই দ্বীপে ভূকম্পন হয়েছিল। রিখটার স্কেলে এর মাত্রা ছিল ৫.৯। ফলে শুক্রবার সকালের ঘটনাকে ভূমিকম্প পরবর্তী কম্পন (আফটার শক) বলে মনে করা হচ্ছে। অবশ্য ভূমিকম্পের কারণে সুনামির কোনো সতর্কতা জারি করা হয়নি।

প্রাথমিক তথ্যের বরাত দিয়ে ইন্দোনেশিয়ার দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ ভূমিকম্পে এখন পর্যন্ত ৩৪ জন নিহত হওয়ার খবর নিশ্চিত করেছে। ভূমিকম্পে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ইন্দোনেশিয়ার মামুজু ও ম্যাজিন শহর। কেবল ম্যাজিন শহরেই ৬৩৭ জন আহত হয়েছেন। হতাহতের সংখ্যা বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

শুক্রবার স্থানীয় সময় রাত ১টার দিকে প্রবল ভূমিকম্পে কেঁপে ওঠে সুলায়েসি দ্বীপ। কম্পন প্রায় ৭ সেকেন্ড মতো স্থায়ী হয়েছিল। আতঙ্কে হাজার হাজার মানুষ ঘর ছেড়ে বেরিয়ে আসেন। কম্পনের তীব্রতায় ধ্বসে পড়ে বাড়ি, অফিস, হাসপাতালসহ অনেক ভবন।

ভূমিকম্পের তীব্রতায় বহু বাড়িঘর ধ্বসে পড়েছে। দেশটির মামুজু শহরে একটি হাসপতালও ধ্বসে পড়েছে বলে জানিয়েছে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম।

হাসপাতালের ধ্বংসস্তূপের নিচে অনেক স্বাস্থ্যকর্মী ও রোগী চাপা পড়ে রয়েছে বলে আশঙ্কা করছে প্রশাসন। ভুক্তভোগীদের উদ্ধারে ঘটনাস্থলে উদ্ধারকারী দল পৌঁছেছে।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে দেখা যায়, ভূমিকম্পের পর স্থানীয়রা ঘর থেকে বেরিয়ে উঁচু কোনো স্থানে যাওয়ার জন্য ছোটাছুটি করছে। ভিডিওতে ধ্বংসস্তূপের নিচে আটকে পড়াদের খালি হাতে উদ্ধারের চেষ্টা করতেও দেখা যায়।

সূত্র: আলজাজিরা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *