ভ্যাকসিন গ্রহণ ও নিবন্ধনের শর্ত শিথিল করেছে সরকার

বাংলা কণ্ঠ রিপোর্ট ॥ বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের টিকা দেয়ার বয়সসীমার ক্ষেত্রে শর্ত কিছুটা শিথিল করার ঘোষণা দিয়েছে সরকার। এ ঘোষণা অনুযায়ী ৫৫ বছর থেকে কমিয়ে এনে বয়সসীমা এখন ৪০ বছরে করা হয়েছে। এ সিদ্ধান্তে ৪০ বছরের বেশি বয়সী লোকজন সবাই স্থানীয় যেকোনো সরকারি হাসপাতালে গিয়ে করোনার টিকা নিতে পারবেন। নিবন্ধনও সেখানেই করানো যাবে।

এর আগে বলা হয়েছিল ৭ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হওয়া প্রথম দফা টিকাদান কর্মসূচিতে স্বাস্থ্যকর্মী ও সম্মুখসারিতে থাকা মানুষরা এবং ৫৫ বছরের বেশি বয়সীরা টিকা নিতে পারবেন।

এ দিকে প্রথম দিনে মোট টিকা নিয়েছেন ৩১ হাজার একশ ৬০ জন। এ দিন সারা দেশের সহস্রাধিক হাসপাতালে চলে এই টিকাদান কর্মসূচি।

সোমবার স্বাস্থ্যমন্ত্রী মন্ত্রণালয়ের সচিবদের নিয়ে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকের পর শর্ত শিথিল করার নির্দেশনা আসে। বলা হচ্ছে, টিকা নেয়া সহজতর করতে এই সিদ্ধান্ত। প্রথম দফায় মোট ৩৫ লাখ ডোজ টিকা সরকার বিনামূল্যে বিতরণ করবে বলে জানিয়েছে। যদিও শনিবার পর্যন্ত অনলাইনে আবেদন জমা পড়েছে সাড়ে তিন লাখেরও কম।

এর মধ্যে বাংলাদেশের সব জেলা উপজেলার এক হাজার পাঁচটি কেন্দ্র থেকে এই টিকা কর্মসূচি একযোগে শুরু করা হয়েছে। এ জন্য কাজ করছে দুই হাজার ৪০০টি টিম। প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত এই টিকা কার্যক্রম চলবে বলে স্বাস্থ্য অধিদফতর জানিয়েছে।

এর মধ্যে ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউটে উৎপাদিত করোনা টিকার ৭০ লাখ ডোজ বাংলাদেশে এসে পৌঁছেছে। চলতি মাসে ৩৫ লাখ টিকা দেয়া পরিকল্পনার কথা বলা হয়েছে, কারণ এই টিকার দুটি করে ডোজ দিতে হয়। তাই ৩৫ লাখ মানুষকে যেন সম্পূর্ণ টিকা কর্মসূচির আওতায় আনা যায়। তবে প্রতি মাসে ৫০ লাখ করে জুন মাস পর্যন্ত আরো আড়াই কোটি ডোজ টিকা আসার কথা রয়েছে।

এ ছাড়া বছরব্যাপী কর্মসূচি চালিয়ে যেতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা থেকে কোভ্যাকের টিকা আনা হবে বলেও স্বাস্থ্যমন্ত্রী নিশ্চিত করেছেন।

সূত্র : বিবিসি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *