ব্রিটিশ বাংলাদেশী এমপি রুশনারা আলীকে হত্যার হুমকিদাতা বাঙ্গালী যুবকে শাস্থি

মতিয়ার চৌধুরী,লন্ডন :  বাংলাদেশী বংশদ্বোত ব্রিটিশ এমপি রুশনারা আলীকে হুমকীদাতা হোসেন শাহ নামের ৪২ বছর বয়সী এক বাঙ্গালী যুবককে সাজা দিয়েয়েছে স্নেয়ারব্রুক ক্রাউন কোর্ট।

সাজার দিন থেকে শুরু করে আগামী ১২বছর কোন এমপি’র সাথে যোগাযোগ করতে নিষেধ করেছে আদালত, এছাড়া তিন বছর সপ্তাহে বিনা বেতনে ১২০ ঘণ্টা কমিউনিটি ওয়ার্ক করতে হবে দোষীব্যক্তিকে। কমিউনিটি ওয়ার্ক বলতে তাঁকে রাস্তা পরিস্কার ও জঙ্গল পরিস্কার করতে হবে।

আদালতের শুনানিতে বলা হয়, ২০১৮ সালের এপ্রিল মাস থেকে ২০১৯ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রায় দেড় বছরব্যাপী সময়ে রুশনারা আলী, তাঁর অফিস কর্মী এবং পরিবারের সদস্যদেরকে হুমকি দিয়ে কয়েক শ’ ইমেইল পাঠিয়েছেন হুসেইন শাহ।

এসব ইমেইলে অশ্লিল ভাষা ব্যবহার করে তিনি মিস রুশনারা আলীকে হয়রানি করেছেন বার বার। স্যোসাল হাউজিং নিয়ে এক সমস্যার সূত্রে রুশনারা আলীর কার্যালয়ের সাথে যোগাযোগ শুরু হয় হুসেইন শাহ’র। পরবর্তীতে হোসেন শাহ ২৯০ টি অশ্লীল বার্তা প্রেরণ করেন।

এর মধ্যে অনেক ইমেইলে বর্ণবাদী মন্তব্য করেন হুসেইন শাহ। রুশনারা আলীর এক পরিবারের সদস্যকে পাঠানো ইমেইলে তিনি হুমকি দিয়ে বলেন, ’’হাতে আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে রুশনারা আলীর কার্যালয়ে গিয়ে জো কোক্সের ঘটনা ঘটাবেন’’।

আরেকটি ইমেইলে ’’সন্ত্রাসী কায়দায় পেট্রোল দিয়ে রুশনারা আলীর কার্যালয় উড়িয়ে দেয়ার হুমকি দেন হুসেইন শাহ। লেবার নেতা জেরেমি করবিন, টাওয়ার হ্যামলেটসের মেয়র জন বিগস, সাবেক হোম সেক্রেটারি সাজিদ জাভিদ, পপলার এন্ড লাইমহাউস এলাকার সাবেক এমপি জিম ফিজপ্যাটরিক এবং রুশনারা আলীর পূর্বসুরী উনা কিংকেও হুমকি দিয়ে বার্তা প্রেরণ করেন তিনি।

আদালতের রায়ে সন্তোশ প্রকাশ করে রুশনারা আলী এমপি বলেছেন, ’’এই রায়ের মধ্য দিয়ে আশা করা যায় আমার, আমার পরিবার এবং আমার সহকর্মীদের জন্য একটা পীড়াদায়ক সময়ের সমাপ্তি হবে।’ ভবিষ্যতে এ ধরনের অপরাধ যেন আদালত পর্যন্ত না গড়ায়, এজন্য মানসিক স্বাস্থ্য খাতে সরকারের বরাদ্দ বৃদ্ধির আহবান জানিয়েছেন রুশনারা আলী এমপি ।

জানা যায় হুমকী দাতা বাঙ্গালী এই িযুবকও একজন ব্রিটিশ বাংলাদেশী তার দেশের বাড়ী বৃহত্তর সিলেট অঞ্চলে সে একটি ধর্মীয় রাজনৈতিক দল জামাতে ইসলামের ইউরোপীয় সংস্করণ দাওয়াতুল ইসলামের সদস্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *