নবীগঞ্জে স্বামীর ধারালা অস্ত্রের আঘাতে স্ত্রী ক্ষতবিক্ষত : স্বামী আটক

উত্তম কুমার পাল হিমেল, নবীগঞ্জ (হবিগঞ্জ)থেকেঃ হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার আজলপুর গ্রামে ২৯ মে শনিবার বিকালে স্বামীর ধারালা অস্ত্রের আঘাতে স্ত্রী মৌসুমি আক্তার ক্ষতবিক্ষত হয়েছে। স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে নবীগঞ্জ হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করেন। তার অবস্থা আশংখ্যাজনক বলে জানা গছে। ঘটনার খবর পেয়ে নবীগঞ্জ থানার ওসির নির্দের্শে পুলিশ হাসপাতালে আহত গৃহবধুক দেখতে ছুটে যান  ও ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে স্বামী ছালাম মিয়াকে আটক করা হয়ছে বলে সুত্রে জানাগেছে।
স্থানীয় সুত্র জানাযায়, উপজলার আউশকান্দি ইউনিয়নের আজলপুর গ্রামের ছালাম মিয়া দীর্ঘদিন পুর্বে একই উপজেলার বাদে রায়ঘর গ্রামের মৌসুমি আক্তারকে বিবাহ করেন। তাদের দাম্পত্য জীবনে ৩টি সন্তানও রয়েছে। বিয়ের পর থেকে কারনে অকারণে স্বামী ছালাম মিয়া প্রায় তার স্ত্রী মৌসুমি আক্তারকে মারপিট করত। এ বিষয় একাধিকবার শালিস বৈঠক করেন স্থানীয় মুরুবীয়ান। শনিবার বিকাল অজ্ঞাত কারনে স্বামী ছালাম মিয়া তার স্ত্রী মৌসুমি আক্তার (৩০)কে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয় গুরুতর জখম করেন।
রক্তাক্ত অবস্থায় প্রাণ রক্ষার্থে মৌসুমি পাশে মতিউর রহমানর বাড়িত আশ্রয় নিতে যাওয়ার পথ উঠান যাওয়া মাত্রই মাটিত অজ্ঞান  হয়ে পড়েন। এসময় তার মাথা থেকে প্রচুর পরিমান রক্তপাত দেখে স্থানীয় লোকজন দ্রুত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে আসেন। তার অবস্থা আশংখ্যা জনক হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে সিলট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করেন। স্বামীর আঘাতে গৃহবধু মত্যু পথযাত্রী হওয়ার খবর পেয়ে তাৎক্ষনিকভাব নবীগঞ্জ থানার ওসি ডালিম আহমদ নির্দেশে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে পাঠান এবং অপর একদল পুলিশ হাসপাতালে আহত মৌসুমির খুজঁখবর নিতে পাঠান।
আহত গৃহবধু  গুরুতর হওয়ায় ঘটনাকারী স্বামী ছালাম মিয়াক আটক কর থানায় নিয়ে আসেন। এ ব্যাপার স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার সাইদুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, প্রায়ই স্বামী ছালাম মিয়া কর্তৃক স্ত্রী মৌসুমিকে মারপিট করত। সারাক্ষন বাড়িতে বসে থাকত ছালাম মিয়া। তেমন কাজকর্ম করতে দেখা যায় না। তবে শনিবার বিকালে কি কারনে স্ত্রীকে নির্মমভাবে আঘাত করেছে তার সঠিক কারন তিনি জানেন না। নবীগঞ্জ থানার অফিসার ইনর্চাজ ডালিম আহমদ বলেন, ঘটনার খবর পেয়ে আহতের স্বামী ছালাম মিয়াকে জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য থানায় আনা হয়ছে। আহত স্ত্রীর সার্বিক অবস্থা পর্যবক্ষন করা হচ্ছে। অভিযোগ পেলে পরবর্তীতে আইনত ব্যবস্থা নেয়া হব।
নবীগঞ্জের মান্দারকান্দি উপ স্বাস্থ্যকেন্দ্রের উপসহকারী ও কর্মচারীর বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ
নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ নবীগঞ্জ উপজেলার কালিয়ারভাঙ্গা ইউনিয়নের মান্দারকান্দি উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। শুধু তাই নয় ওই কেন্দ্র থেকে কোনো ওষুধও সরবরাহ করা হচ্ছে না।
দিনের পর দিন কর্মকর্তা-কর্মচারীরা অনুপস্থিত থাকায় বেশির ভাগ সময়ই কেন্দ্রটি বন্ধ থাকে। ফলে সেবা নিতে আসা ওই এলাকার শত শত মানুষ চিকিৎসা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। নিরূপায় হয়ে নবীগঞ্জ ও হবিগঞ্জের বিভিন্ন ক্লিনিকে গিয়ে চিকিৎসা দেন। স্থানীয়রা জানান, শুক্রবার ছাড়া প্রতিদিন ওই কেন্দ্রটি খোলা থাকার কথা। কিন্তু গতকাল গিয়ে দেখা যায় ওই ক্লিনিকটি বন্ধ রয়েছে। এ সময় সেবা প্রত্যাশীরা জানান, ওই কেন্দ্রের ডাক্তার ফারহানা লায়লা, উপ-সহকারি মেডিকেল অফিসার আল মামুন শাহনেওয়াজ, এফডøবিওবি অনিমা রায় ওই কেন্দ্রের দায়িত্বে রয়েছেন।
কিন্তু বেশিরভাগ সময়ই তারা অনুপুস্থিত থাকেন। কিন্তু অফিস সহায়ক আলমগীরকে মাঝে মধ্যে পাওয়া গেলেও কিছু পাওয়া যায় না। এ ছাড়া ওই কেন্দ্রের সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে অন্যত্র ওষুধ বিক্রির অভিযোগও রয়েছে।
এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা আব্দুস সামাদ জানান, বিষয়টি খতিয়ে দেখব। যদি প্রমাণ হয় তাহলে তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *