কেয়ামতের পরিস্থিতি হবে ভয়াবহ, কেউ কাউকে চিনবে না ॥ জুমার খুৎবায় মোস্তাফিজুর রহমান আজহারী

হবিগঞ্জ শহরের মোহনপুর জামে মসজিদে জুমার খুৎবায় আল্লামা মোস্তাফিজুর রহমান আজহারী বলেছেন- রাসুল সাঃ কে কেয়ামত সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হল। আল্লাহ নিজে কেয়ামতের বর্ণনা করে সূরা নাজিল করেছেন। কেয়ামতের আলামত সম্পর্কে পক্ষিত্র কোরআনে অনেক আয়াত ও সূরা রয়েছে।

এর মধ্যে সূরা আল যিলযাল অন্যতম। এ সূরায় কিয়ামতের কিছু আলামত বর্ণনা করা হয়েছে। যখন প্রচন্ড ঝাকুনি দিয়ে পৃথিবীকে কম্পিত করা হবে, পৃথিবীর ভেতরে থাকা সব কিছুকে বের করে দেয়া হবে, মানুষ বলতে থাকবে পৃথিবীর কি হল, কেন এর ভেতরে থাকা সবকিছু বের হয়ে আসছে, মূলত এ কাজটি মহান আল্লাহই করে থাকবেন, ওইদিন সকল মানুষ দলে দলে ভাগ হয়ে যাবে, প্রত্যেক মানুষকে তাদের কর্মকান্ড দেখানো হবে, যে ব্যক্তি অণূ পরিমান ভাল কাজ করেছে সেদিন সে তা নিজ চোখে দেখতে পারবে, ঠিক এমনিভাবে যদি কোনো মানুষ জীবিত থাকাকালে অণু পরিমান খারাপ কাজও করে থাকে সেদিন সে তাও দেখতে পারবে। কোনো কিছু লুকায়িত থাকবে না, কোনো কিছু গোপনও করা হবে না।

৩০ জুলাই শুক্রবার  জুমার খুৎবায় আল্লামা আজহারী বলেছেন- সকল ইনসান ও জ্বিনের বিচারের আয়োজন করা হবে। কিন্তু সেই বিচারের জন্য অপেক্ষা করতে হবে বছরে পর বছর, মানুষ পাগল হয়ে যাবে, কাদতে কাদকে মানুষের চোখের পানি শুকিয়ে যাবে, চোখ দিয়ে রক্ত বের হতে থাকবে এমনকি অস্তিমজ্জার ভেতরে থাকা ক্যালসিয়াম পর্যন্ত চোখ দিয়ে গলে গলে বের হতে থাকবে।

সেদিন কোনো মানুষ কোনো মানুষ চিনবে না, সন্তান তার মা বাবাকে চিনবে না, বাবা মা তার সন্তানকে চিনবে না, ভাই বোন আত্বীয় স্বজন কেউ কাউকে চিনবে না। পৃথিবী থেকে ১৩ লক্ষগুন বড় সূর্য নেমে আসবে মাথার উপরে, দুরুত্ব থাকবে মাত্র কয়েক ইঞ্চি। কিছু মানুষ ওইদিন আল্লাহর আরশের ছায়া পাবে, তারা হল নেককার বান্দা, যারা আল্লাহর জমিনে আল্লাহর হুকুম পালন করেছে। এই কঠিন আযাবের দিন জীবিত থাকাকালের নেক আমল ছাড়া কিছুই কাজে আসবে না। তিনি সকলকে কিয়ামতের ভয়াবহতা উপলব্দি করে নেক আমল করার আহবান জানান।

লেখকঃ এম এ মজিদ

আইনজীবি ও সাংবাদিক

হবিগঞ্জ,
৩০ জুলাই ২০২১ ইং
০১৭১১-৭৮২২৩২

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *