শূণ্যে বসবাস : মোশাররফ আহমেদ ঠাকুর

শৈশব কৈশোরের দূরন্তপনা
প্রথম যৌবনের মাতাল উন্মাদনা
এখন সবই ফিকে, চশমার ফাঁকে
স্মৃতি সব ঝাপসা হয়ে আসে।
ফুসফুসের দম একেবারে কম
হৃদপিণ্ডের বিশ্বাস নেই নিশ্বাসে
নাড়ীর গতি ক্ষীণ
দুঃস্বপ্ন ঘুরে আশেপাশে।
বড্ড অবেলায় করোনাকলে
কথা হলো খরতাপের চৈত্র মাসে
পড়ন্ত বেলায় হেলে পড়া সূর্য
হাসে, নিদারুণ উপহাসে।

বৈশাখের ঝড় তুফানের রাতে
আলো যখন নিভে আসে
বজ্রপাতের আলোয় আম কুড়োনো
এখন নিরেট আষাঢ়ে গল্প।
প্রথম বর্ষার জলে ডুব সাতার
বৃষ্টিতে ভিজে ছুটোছুটি
ভালোবাসায় লুটোপুটি
কিছু নেই, এখন সব বিকল্প।

এ কেমন এক পাথর সময়
ডেথ সার্টিফিকেট চায়
স্বজনরা ছুয়ে দেখে না লাশ
মৃত্যুর আগে মৃত্যু, কেমন অবিশ্বাস।
তারপরও বাঁচি আশায় ভালোবাসায়
কানের পাশে যমের নিশ্বাস
আশ্বাস বিশ্বাসের কল্পকথায়
করি সভ্যতার শূন্যে বসবাস।
শূন্যের পাশে তুমি হতে পারো
গণিতের সংখ্যা এক কিংবা নয়
আশায় বুক বাঁধি নিশ্চয়
এধরনীতেই হবে মানবতার জয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *